রেসিপিঃ পাতলা ডালের মত করে আলু রান্না (চমৎকার স্বাদ, স্বাদ মনে রাখতেই হবে)

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

কয়েকদিন আগে আমার ছোট চাচার বাসায় হঠাত করে দুপুরের দিকে খেতে যাই। সামনে খাবার টেবিলে যা ছিল তা দিয়েই খেতে বসে পড়ি, এটা আমার জন্য নুতন কিছু না, এই বাসায় এলে আমি এমনি যা পাই তাই খাই। আমার এই চাচীমা বেশ ভাল রান্না করেন। আজ বেশ কয়েক পদের তরকারী ছিল, তবে যে রান্নাটা আমার মনে দাগ কাটলো সেটা হছে, আলু দিয়ে ডালের মত করে একটা রান্না। আলুর ডাল রান্না বলা যেতে পারে। হেসে হেসে তিনি জানালেন, তিনি এই রান্নাটা মাঝে মাঝেই করেন এবং সবাই পছন্দ করে।

আমি প্রথম দেখে বুঝতে পারি নাই, পরে পাতে নিতে গিয়ে চাচীমাকে জিজ্ঞেস করতে তিনি আমাকে এই রান্নার বিস্তারিত জানালেন। আমি খেতে বসেই রেসিপিটা মাথায় নিয়ে নিয়েছিলাম। রাতে বাসায় ফিরেই রান্না করে ফেললাম। আমার রান্না টেষ্টার বুলেট এবং ব্যাটারী খেয়ে আমাকে জানালেন, দারুন। আমি নিজেও রান্না খেয়ে বুঝতে পারলাম, বেশ সুস্বাদু। এবং নিজের মনে বার বার মনে হল, সেরা রান্নাটা হয়ে গেল নাকি! হা হা…

View original post 467 more words

Advertisements

রেসিপিঃ নুতন সিম এবং নুতন আলু রান্না (বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের জন্য)

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

বাংলাদেশ ক্রিকেট দল দেশের জন্য বিরাট জয় এনে দিয়েছে। গতকালের (১৬/০৩/২০১২ইং) এই জয়ের আনন্দ ভুলে যাবার মত নয়। তাই ক্রিকেট দলকে দাওয়াত দিয়ে খাওয়াতে ইচ্ছা হচ্ছে! কিন্তু কি খাওয়াবো, ভাবছিলাম। আমার একটা প্রিয় খাবারের তরকারী হচ্ছে নুতন আলু এবং সিম রান্না। যদিও এই রান্নাটা আমার বেশ কয়েক মাস আগের রান্না, তবুও চলবে বলে মনে হচ্ছে! এই রান্নাটা আর কিছু দিন পরে দিলে, নিজের কাছে নিজকে বোকাই মনে হবে! কারণ সিম ও আলুর সিজন শেষ হয়ে আসছে! চলুন দেখে ফেলি। এই রান্নাটা আমার মাইয়ের হাতে বেশ মজা হত। আমিও মন্দ করি না! আমার স্ত্রী খেয়ে বলেছিল – বাহ, বেশ! তা হলে, এবার বুঝুন অবস্থা!


পরিমান মত নুতন সিম ও আলু কেটে ধুয়ে রাখুন।


আলু সিমকে লবন গরম পানিতে সিদ্ব করে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রেখে দিন। আলু সিমের রঙ চমৎকার দেখানোর জন্য এই ব্যবস্থা।


একটি পাত্রে তেল গরম করে কিছু পেঁয়াজ কুঁচি, সামান্য রসুন বাটা ও লবন দিয়ে ভাল করে…

View original post 149 more words

খোলা চিতই পিঠা (আড্ডায় ভাল জমত)

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

লিখেছেনঃ সাহাদাত উদরাজী (তারিখঃ ২৭ জানুয়ারি ২০১২, ২:২৩ অপরাহ্ন)

আজ বিকালে চতুররের বন্ধুদের আড্ডা, ছবির হাটে। আড্ডার কথা শুনলে আমার মন ভীষন আনচান করে উঠে কারণ আমি আড্ডা প্রিয় মানুষ এবং বাল্যকাল থেকে আড্ডা মেরে মেরে বড় হয়েছি! আমার আড্ডার স্থান ও বন্ধুর সংখ্যা বললে অনেকে বিশ্বাস করবেন না, প্রচুর। এখনো আমার কোন বন্ধু আমাকে ভুল বুঝে নাই কিংবা খারাপ ঝগড়া বিবাদ হয় নাই। আমার ভুল হলে আমিই আগে ক্ষমা চাই এবং সবার কাছে বিশ্বস্ত থাকতে চাই, এবং সেটা আমৃত্যু চলবে বলে আমি মনে করি। কাজে কাজেই, আমার মায়ের আমার জন্য বিশেষ আদর ছিল। তিনি আমার আড্ডা তেমন কিছু মনে করতেন না, কারণ ছোট বেলা থেকে ‘ভাল ছেলে’র একটা লেভেল গায়ে প্রিন্ট মেরে রেখেছিলাম। আর যত যাই হত (সব খবর তিনি রাখতেন) তিনি আমার কাছ থেকে জানতেন, আমি আমার মায়ের কাছে সব বিষয়ে ফ্রী ছিলাম (আমার ইচ্ছার বিবাহেও তিনি বাঁধা দেন নাই, গায়ে জ্বর নিয়ে তিনি আমার বিবাহে উপস্থিত হয়েছিলেন)।…

View original post 704 more words

টমেটো ভর্তা (পুড়িয়ে এবং ধনিয়া পাতা দিয়ে)

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

লিখেছেনঃ সাহাদাত উদরাজী (তারিখঃ ২২ জানুয়ারি ২০১২, ৬:১৭ অপরাহ্ন)

ফেব্রুয়ারী মাসে চতুরের প্রথম পাতায় রেসিপি দিলে কে কি বলবে কে জানে? ফেব্রুয়ারী মাস মানেই বই নিয়ে গবেষণা, খাওয়া দাওয়া চলে না!! তা ছাড়া প্রচুর ব্লগার এবারের বই মেলায় বই বের করছেন, তাদের প্রতিটা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন, পোষ্ট যত বেশী সময় প্রথম পাতায় থাকবে তত ভাল লাগবে সবার, সবাই জানতে পারব। তাই ফেব্রুয়ারী মাসে কোন রেসিপি পোষ্ট প্রথম পাতায় দিব না বলে সিদান্ত নিয়েছি (নিজ পাতায় চলবে)। যাদের রেসিপি ভাল লাগে, খাবারের ছবি দেখতে ভাল লাগে তারা আমার নিজ পাতায় দেখে আসতে পারবেন।

আজ দুপুরে তোপখানা রোড়ের একটা হোটেলে খাবার খেয়েছি। চার পদের ভর্তা ছিল, স্বাদও ভাল লেগেছিল। কিন্তু দাম অনেক বেশী মনে হয়েছে। এ দিকে গত কয়েকদিনে বাসায়ও নানা পদের ভর্তা হয়েছে। টমেটো, মরিচ, বেগুন ও টাকি মাছ ভর্তা। ভর্তা আসলে খুবই সহজ। শুধু পরিমানের দিকে খেয়াল রাখতে হয়। পরিমান মত মিক্সিং একটা ভাল ভর্তা তৈরী হয়। চলুন আজ দেখে ফেলি…

View original post 104 more words

ভর্তা: পোড়া আলু

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

লিখেছেনঃ সাহাদাত উদরাজী (তারিখঃ ১৭ অক্টোবর ২০১১, ৭:০০ পূর্বাহ্ন)

আলু ভর্তার ব্যাপারটা আমার জানা আছে, জীবনে কতবার খেয়েছি তা মনে করতে পারব না। সরাসরি আলু সিদ্ব করে, ছটকিয়ে ভর্তা বানানো হয় কিন্তু আলু পুড়েও যে ভর্তা বানানো যায় তা আমার জানা ছিল না। অখাউড়া অঞ্চলে এমন একটা ভর্তা বানায় বলে আমার স্ত্রী আমাকে জানান। গুদামে আলু পুড়লে লোকজন নাকি সেই আলু খেতে যায়! ভর্তা বানাবার আগে আমি অল্প পোড়া আলু খেয়ে দেখেছি, আসলেই মজা! সাধারন আলু পুড়ে খাবার কথা জানা না থাকলেও আমরা ছোট বেলায় মিষ্টি আলু পুড়ে খেতাম। সে যাই হোক, চলুন আলু পুড়ে ভর্তা বানাই।


পরিমান মত আলু নিয়ে পানিতে সিদ্ব করুন। সিদ্ব করতে করতেই পাতিলে আলু পুড়িয়ে ফেলতে পারেন, মানে পানি শেষ হয়ে গেলে আলু পুড়তে থাকবে। আর পাতিলের মায়া থাকলে সিদ্ব করে আলু গুলোকে খোলায় টেলে পুড়িয়ে ফেলুন। ছবির মত পুড়বেন, আবার পুড়ে কয়লা বানালে চলবে না।


আলু গুলোর চামড়া ছিলে রাখুন। কিছু পেঁয়াজ কুচি ও…

View original post 82 more words

রেসিপিঃ আলু ভর্তা (নুতন আলু দিয়ে)

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

হাতে অনেক রেসিপি জমে আছে। বিরিয়ানি রেসিপি থেকে বেশ কিছু ভাল রেসিপি/ কঠিন রান্না জমিয়ে ফেলেছি! কিন্তু আমার টার্গেটের কি হবে! আমি যে টার্গেট গ্রুপ নিয়ে কাজ করি, যাদের জন্য আমার নিজেও রান্না শিখিয়ে ফেলা, তার কি হবে? ব্যচেলর কিংবা প্রবাসী ভাই বোনরা যতটা ভাল খাবার খান কিংবা চাইলে খেতে পারেন, সে মত আমাদের সাধারন রান্না গুলো খেতে পান না। এদিকে আবার বিশেষ টার্গেট হচ্ছে আপনাদের রান্নায় আগ্রহী করে তোলা বিশেষ করে পুরুষদের রান্না ঘরে প্রবেশ করিয়ে দেয়া। (এতে কি উপকার তা পরে টের পাবেন!) কঠিন রেসিপির চেয়ে সাধারন ও সহজ রেসিপিই আমার ব্লগের প্রান।

যাক, কাজের কথায় আসি। বাজারে এখন নুতন আলু। দেখেই প্রান জুড়ায়। মাটিতে যেন সোনা ফলে। আর সেই সোনাই আমাদের প্রান বাঁচায়। গত কয়েকদিনে প্রায় পাঁচ কেজি নুতন আলু কিনেছি। বেশ কয়েক পদের রান্না হয়েছে, সব কিছুতেই নুতন আলু। আহ, আলু ভর্তা বাদ থাকবে কেন?

এমন আলু ভর্তা হলে আর কি লাগে। চলুন দেখে ফেলি।

উপকরণঃ

View original post 152 more words

ভর্তাঃ কাঁচা কলা

রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe)

একদম সাধারন এবং সহজ। কাঁচা কলা ভর্তা। আমি নিশ্চিত গরম ভাতের সাথে খেয়ে বলেতে পারেন, ওয়াও! আসুন দেখা যাক ছবি সমেত কাঁচা কলা ভর্তা। আপনারা একবার নিজ হাতে বানিয়ে টেষ্ট করতে পারেন।


ছবি ১ – কাঁচা কলার হালি এখন বিশ টাকা। ভাল ভর্তায় দেশী কাঁচা কলা হলে ভাল হবে।


ছবি ২ – ভাল করে সিদ্ব করুন। ডাকনা দিয়ে, ভাল করে সিদ্ব হতে হবে নতুবা মিহীন হবে না।


ছবি ৩ – কিছু পেঁয়াজ (পাঁচ কেজি ১৩০ টাকা) ও মরিচ কুচি করে নিন। লবণ নিন প্রয়োজন মত।


ছবি ৪ – কলা ছিলুন।


ছবি ৫ – সব কিছু প্লেটে জমিয়ে রাখুন।


ছবি ৬ – খাঁটি সরিষার তেল নিতে ভুলবেন না।


ছবি ৭ – মিহি করে মেখে ফেলুন।


ছবি ৮ – ব্যস, তেরী হয়ে গেল ‘কাঁচা কলার ভর্তা’।

এটা আসলে একদম গোলালু ভর্তার মতই। আমি এই ভর্তা খেয়েছিলাম বহু বছর আগে ময়মনসিংহে আমার বন্ধু ইকবালের বাড়ীতে। অনেক স্বাদ হয়েছিল। গত কয়েকদিন আগে আবারো কাকতালীয়…

View original post 96 more words